মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৩২ পূর্বাহ্ন

স্বামীকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ও শিশু সন্তানের গলায় ছুরি ধরে মাকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ-আটক ১

জুবায়ের খন্দকার, ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৩০ ডিসেম্বর, ২০২১

স্বামীকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ও শিশু সন্তানের গলায় ছুরি ধরে গত ২৮ ডিসেম্বর মঙ্গলবার রাতে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় এক মহিলাকে ৫/৬ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল ধর্ষণ করে। এ সময় ভুক্তভোগী ওই মহিলার স্বামীকে অস্ত্রের ভয় দেখালে তার স্বামী ভয়ে ঘর ছেড়ে পালিয়ে যায়। পরে ওই মহিলার শিশু সন্তানের গলায় ছুরি ধরে তাকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে। ওই রাতেই ধর্ষণের অভিযোগে মো. জুবায়েদ হোসেন আকাশ (১৯)-নামের এক যুবককে আটক করেছে ঈশ্বরগঞ্জ থানা পুলিশ।

২৯ ডিসেম্বর বুধবার বিকালে ধর্ষণ মামার আসামি মো. জুবায়েদ হোসেন আকাশকে ময়মনসিংহের আদালতে নেওয়া হলে বিজ্ঞ আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

ধর্ষণ ও আটকের বিষয়টি গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে নিশ্চিত করে ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) জহিরুল হক মুন্না বলেন- দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের শিকার ওই নারী শহরের বিভিন্ন বাসায় কাজ করে আসছিলেন। আর জন্য ভিক্টিমের স্বামী পেশায় সিএনজি চালক শহরে একটি বাসায় ভাড়া নিয়ে থাকতেন।

ঘটনার দিন অর্থাৎ ২৬ ডিসেম্বর মধ্যরাতে বাসার মলিকের ছেলে মো. জুবায়েদ হোসেন আকাশ ভিক্টিমের ঘরের দড়জায় এসে জোরে ধাক্কা দেয়। প্রথমে ভিক্টিম দরজা না খুলায় পরে মো. জুবায়েদ হোসেন আকাশ তার পরিচয় দিলে ভিক্টিম ঘরের দরজা খুলে দেয়। দরজা খুলার সাথে সাথে ৫/৬ জনের একটি দল ঘরে প্রবেশ করে ঘুমিয়ে থানা ভিক্টিমের স্বামীকে অস্ত্রের ভয় দেখালে ভিক্টিমের স্বামী দৌড়ে পালিয়ে যায়।

পরে অভিযুক্ত জুবায়েদ ভিক্টিমকে টেনে-হিঁচরে তার নিজের ঘরে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এমন সময় ভিক্টিম ধর্ষণে বাঁধা দিলে তার শিশু সন্তানের গলায় ছুরি ধরে হত্যার ভয় দেখিয়ে ভিক্টিমকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে। পরে ঘটনাটি জানাজানি হলে ভিক্টিম ওই রাতেই জুবায়েদসহ অন্ততঃ ৫ জনকে আসামি করে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। এই ঘটনার সাথে জরিত বাকী আসামিদেরকে আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে জানালেন ঈশ্বরগঞ্জ থানার তদন্তের এই কর্মকর্তা।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ