মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন

মায়ের মাথা ফাটালেন কুড়িগ্রাম জেলা আ’লীগ সদস্য ও ক্লোজআপ ওয়ান তারকা সাজু

প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১

সুভাষ চন্দ্র, উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলাধীন পান্ডুল ইউনিয়নের তেলীপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ক্লোজআপ ওয়ান তারকা ও কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শিল্পী সাজু আহমেদের আঘাতে গর্ভধারিণী মা রাণীজন বেওয়া গুরুতর আহত হয়ে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জানা গেছে, ক্লোজআপ ওয়ান তারকা সাজু আহমেদ শিল্পী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার জন্য তার পরিবারের কাছ থেকে বিভিন্ন সময় প্রায় ১৬ লোখ টাকা নেন। তার মা রাণীজন বেওয়া সন্তানকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে জমি বন্দক রেখে পরিবারের টাকা সাজুর হাতে তুলে দেন সন্তান প্রতিষ্ঠিত হলে তাদের সকল বন্দকী জমি উদ্ধার হবে এবং পরিবারের সচ্ছলতা ও শান্তি ফিরে আসবে এই আশায়। কিন্তু ক্লোজআপ ওয়ান তারকা খ্যাত কণ্ঠশিল্পী সাজু আহমেদ সমাজে প্রতিষ্ঠিত হলেও তার পারিবারিক বন্দক রাখা জমিগুলো আর উদ্ধার হয়নি। বিভিন্নভাবে টাকা জোগাড় করে সাজুর মা রাণীজন বেওয়া বন্দকী জমির কিছু অংশ উদ্ধার করে বর্তমানে উক্ত জমিতে চাষাবাদ করে সংসার চালাচ্ছেন।

সম্প্রতি সাজু তার পৈত্রিক সম্পত্তির হিস্যা বুঝে চাইলে পরিবারের লোকজন ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে গত ১৬ আগস্ট সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সালিশ বৈঠকের সিদ্ধান্ত মতে এক বছরের জন্য সকল জমি তার মা রাণীজন বেওয়ার নিয়ন্ত্রণে চাষাবাদ করার মৌখিক সিদ্ধান্ত দেয়া হয়। কিন্তু সম্প্রতি পান্ডুল ইউনিয়ন পরিষদের আসন্ন নির্বাচনে সাজু আহমেদ নিজেকে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে এলাকায় প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। নির্বাচনের জন্য পৈত্রিক জমি বিক্রি করতে চাইলে মা তাতে অস্বীকৃতি জানান। এতে মা-ছেলের মধ্যে মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয়। এরই জেরে গত শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে পরিবারের লোকজনের সাথে সাজুর সামান্য কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সাজু কাঠের পিঁড়া (বসার জন্য কাঠের তৈরি) ছুড়ে তার মায়ের কপালে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করেন। এলাকার লোকজন গুরুতর আহত অবস্থায় সাজুর মাকে (রাণীজন বেওয়া) উদ্ধার করে  কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করান। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

পান্ডুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সাজুর মাকে দেখতে এসে বলেন, সাজু দেশের একজন খ্যাতিমান কণ্ঠশিল্পী এবং কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। তারা আঘাতে আপন মায়ের রক্ত ঝরা ন্যক্কারজনক ঘটনা। আমি এহেন ঘটনার ধিক্কার জানাই। সাজু এলাকায় নিজেকে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রচারণা চালাচ্ছে। যার কাছে গর্ভধারিণী মা-ই নিরাপদ নয় তার কাছ থেকে জনগণ কী সেবা পাবে? সাজু স্বাধীনতর নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগের সুনাম নষ্ট করেছে, ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছে। তিনি সাজুকে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্যপদ থেকে বহিষ্কারের দাবি জানান।

উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. ইমতিয়াজ কবীর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলা প্রক্রিয়াধীন।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ