শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০২:১১ পূর্বাহ্ন

মহেশখালীতে সবখানেই বিদ্রোহী প্রার্থীদের সাথে হচ্ছে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা

মফিজুর রহমান, মহেশখালী প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১

আগামীকাল ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মহেশখালীর ১টি পৌরসভা ও ৩টি ইউপি নির্বাচন। সবখানেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের সাথে একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের হচ্ছে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা। ফলে প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় রয়েছে টান টান উত্তেজনা। ইতিমধ্যে ছোটখাটো বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ সংঘাতের কারণে বিরাজ করছে উত্তাপ। ভোটাররা সুষ্ঠু পরিবেশে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে রয়েছে শংকিত। তবে সুষ্ঠু অবাধ ও নিরপেক্ষ একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রশাসন হার্ড লাইনে।

এলাকায় এলাকায় সৃষ্ট উত্তেজনা প্রশমনে নিরলস ভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। মহেশখালী পৌরসভায় মেয়র পদে ৪ জন, সাধারণ আসনের কাউন্সিলর পদে ২৭ জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১১ জন প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী সহ মোট ৪২জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। অপরদিকে তিনটি ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান মেম্বার ও সংরক্ষিত মহিলা আসনে সর্বমোট ২৫১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। পূর্ব ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মহেশখালী পৌরসভার নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) মো. আমিন আল পারভেজ এবং সহকারি রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্বে আছেন মহেশখালী উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ জুলকার নাইম। মহেশখালী পৌরসভায় মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৪ জন প্রার্থী। এরা হচ্ছেন, আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব মকসুদ মিয়া (নৌকা), সাবেক মেয়র স্বতন্ত্র প্রার্থী সরওয়ার আজম (নারিকেল গাছ), মহেশখালীর সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আমজাদ হোসেন( মোবাইল ফোন), মেয়র মকসুদ মিয়ার স্ত্রী সর্জিনা আকতার (পানির জগ) প্রতীক পেয়েছেন।

পৌরসভায় ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলার পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ২৭ জন, সংরক্ষিত আসনে নারী কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১১ প্রার্থী। এখানে মোট প্রার্থী ৪২জন। মহেশখালী পৌরসভায় ৯ টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ২০ হাজার ৪ শত ৩০ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০ হাজার ৭ শত ৯৯ জন এবং নারী ভোটার ৯ হাজার ৬ শত ৩১ জন। সরজমিনে এলাকা পরিদর্শন করে ও ভোটারদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, মহেশখালী পৌরসভার এবারের নির্বাচনেও বরাবরের ন্যায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আওয়ামী ঘরানার দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বি হেভি ওয়েট প্রার্থী বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব মকছুদ মিয়া ও সাবেক মেয়র সরওয়ার আজমের মধ্যে। এই পৌরসভায় গতবারের নির্বাচনে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে মেয়র প্রার্থী সরোয়ার আযমের পক্ষের কর্মী সমর্থক আব্দু শুক্কুর নামের একজন নিহত হয়েছিল। এবারের নির্বাচনেও দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর তীব্র উত্তেজনা পূর্ণ নির্বাচনে চরম উৎকণ্ঠায় শঙ্কায় রয়েছে প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকরা। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে কিনা এই শঙ্কায় রয়েছে ভোটাররা। অবশ্য নির্বাচন কমিশন ও স্থানীয় প্রশাসন বলছে একটি অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন পরিচালনার জন্য তারা সম্ভব সব ধরনের প্রস্তুুতি নিয়ে হার্ড লাইনে রয়েছেন। অপরদিকে তিনটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মধ্যে কুতুবজোমে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ৬ জন, সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ৬১ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ১০ জনহসহ মোট প্রার্থী ৭৭ জন। এই ইউনিয়নে ভোটারদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট শেখ কামালের সাথে একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোশাররফ হোসেন খোকনের সাথে হবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা। হোয়ানকে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ১১ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৬১ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১৪ জনসহ মোট ৮৬ জন প্রার্থী। অপরদিকে মাতারবাড়ী চেয়ারম্যান প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ১০ জন প্রার্থী। ৯টি ওয়ার্ডে মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ৫৯ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ১৯ জন প্রার্থী। এখানেও মোট প্রার্থী ৮৮ জন। নির্বাচন প্রসঙ্গে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহি অফিসার মোঃ মাহফুজুর রহমান বলেন, সুষ্ঠু অবাধ ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশন ও জেলা প্রশাসকের নির্দেশনা মতে মহেশখালী উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন সব ধরনের প্রস্তুুতি সম্পন্ন করেছে। নির্বাচনে প্রভাব বিস্তুারকারীদের কোন প্রকার ছাড? দেওয়া হবে না। মহেশখালী উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ জুলকার নাইম জানান, মহেশখালীতে অবাধ শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে মহেশখালী নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ ও নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি সবাইকে আচরণবিধি মেনে চলার পরার্মশ দেন। সহকারী পুলিশ সুপার (মহেশখালী- কুতুবদিয়া সার্কেল) জাহেদুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীদের সমর্থন ও ভোটারদের প্রতি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মেসেজ হচ্ছে আমরা জনগণের ভোটাধিকার প্রয়োগের উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করতে প্রশাসন ও সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবো। সকলেই আইন-শৃংখলার পরিবেশ রক্ষা করে প্রশাসনকে সহযোগিতার মাধ্যমে নিজ নিজ ভোটাধিকার প্রয়োগ করুন। পুলিশ প্রশাসন আপনাদের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় বদ্ধপরিকর। আর নির্বাচনে যদি কেউ প্রভাব বিস্তুার করার চেষ্টা করে তাদেরকে কঠোর হস্তেু দমন করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ