মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০৩ পূর্বাহ্ন

মহেশখালীতে মাদকের ছড়াছড়ি

প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৭ আগস্ট, ২০২১

মফিজুর রহমান, মহেশখালী প্রতিনিধিঃ

মহেশখালীতে মাদকের ছড়াছড়ি, হাত দিলে পাওয়ায় মদ, গাজা, ইয়াবা, হেরোইন সহ সকল মাদকদ্রব্য।

গ্রামগঞ্জের হাটবাজারগুলো সহ গুরুত্বপূর্ণ জায়গার আশপাশে অলিতেগলিতে চলছে মাদকের কেনাবেচা। উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ও ১ পৌরসভায় ১”শ টির অধিক স্পটে মাদক কেনাবেচা হয়।

এলাকার বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীরা, প্রভাবশালী নেতাদের সাথে হাত মিলিয়ে, প্রশাসনের চোখের অাড়ালে রমরমা মাদক ব্যবসা গড়ে তুলেছে। এদিকে মহেশখালী থানা পুলিশ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে এক দেড় মাসে ১২ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক করেছেন। একের পর এক মাদক ব্যবসায়ী আটক হলেও থেমে নেই মাদক কেনাবেচা।

নির্ভযোগ্য সূত্র জানায়, প্রভাবশালী কয়েকজন পর্দার আড়ালে থেকে অসাধু কিছু রাজনীতিবিদদের সহযোগিতায় ব্যবসা অব্যাহত রেখেছে। চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের
সাথে রয়েছে নেতাদের গভীর সম্পর্ক।

এছাড়া চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের নিযুক্ত করা বিক্রেতারা প্রতিদিন উপজেলার কালারমারছড়া, হোয়ানক, শাপলাপুর সহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের প্রকাশ্যভাবে মাদক কেনাবেচা করছে। তবে মাদক ব্যবসায়ী এলাকার মানুষকে জিম্মি করে রেখে সুবিধা ভোগ করছে। কেউ তাদের বিরুদ্ধে কথা বললে বিভিন্ন হুমকি দেয়।

স্থানীয়রা বলেন, পুলিশ যদি ঠিকভাবে ও নিয়মিত কঠোরভাবে তৎপর হয়, তাহলে এ উপজেলা সম্পূর্ণ মাদকমুক্ত করা সম্ভব। মহেশখালী থানার বতর্মান (ওসি) আবদুল হাই কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ট ওসি হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন। তিনি অবশ্যই এ উপজেলাকে মাদকমুক্ত করেন।

অনুসন্ধান করে জানা গেছে, কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে পাচার হচ্ছে মাদক। এছাড়াও মহেশখালী উপজেলায় সড়ক ও নৌ পথে এসব মাদক ঢুকে পৌঁছে যাচ্ছে এলাকার যুবকদের কাছে চাইলেই হাতের নাগালে পাচ্ছে গাঁজা, মদ, ইয়াবা, হেরোইনসহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য।মাদকের এ ভয়াবহ ছোবলে যুব সমাজ বিপথগামী হয়ে পড়েছে।

হোয়ানক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল বলেন, এবিষয়ে স্থানীয়রা অভিযোগ করেনাই। অভিযোগ পেলে মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন।

শাপলাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল খালেক চৌধুরী বলেন, এলাকায় মাদক বিক্রয় হচ্ছে সত্য, তবে যাকে হাতেনাতে পাই আটক করে দ্রুত থানায় প্রেরণ করা হয় বলে জানিয়েছেন।

কালারমারছড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ বলেন, ইউনিয়নের বিভিন্ন জায়গায় মাদক বিক্রয় হচ্ছে। সঠিক তথ্য পেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল হাই জানান, মাদকের ঠিক কতটি স্পট রয়েছে এই মুহুর্তে বলা যাচ্ছে না। তবে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে প্রতিদিন মাদক ব্যবসায়ী আটক হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ