মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৫৫ পূর্বাহ্ন

ভুল চিকিৎসায় ময়মনসিংহের ভালুকায় নবজাতকের মৃত্যু

জুবায়ের খন্দকার, ময়মনসিংহ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১

 ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার জামিরদিয়ার মাষ্টারবাড়ি এলাকার একটি বেসরকারী পপুলার হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় এক নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। নিহত নবজাতকের বাড়ি জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার গোপালগঞ্জ গ্রামে। নিহত নবজাতকের পিতা স্বপন মিয়া ভালুকা উপজেলার জামিরদিয়া এলাকায় একটি গ্যারেজে শ্রমিকের কাজ করতেন। সেই সাথে তিনি সাথে তিনি স্বপরিবারে সেখানে একটি বাসা ভাড়া করে থাকতেন।

স্বপন মিয়ার দেওয়া তথ্য মতে জানা যায় যে, গত ১১ সেপ্টেম্বর শনিবার সকালে স্বপনের স্ত্রী কুলসুম (২৫)-এর প্রসব ব্যথা উঠলে স্থানীয় মাষ্টারবাড়ি পপুলার হাসাপাতালে নিয়ে যান। কুলসুমকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ স্বপন মিয়াকে বলেন যে, বাচ্চার মা ও বাচ্চাকে বাঁচাতে হলে এই মুহুর্তে রোগীকে সিজারিয়ান অপারেশন করতে হব। আর এ জন্য তাকে হাসপাতাল ক্যাশ কাউন্টারে ১০ হাজার এখন জমা দিতে হবে এবং বাকী ৬ হাজার টাকা পরে জমা দিতে হবে। চুক্তিমত ১০ হাজার টাকা নেওয়া হলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সিজারিয়ান অপারেশন না করে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে নবজাতক প্রসব করান।

অদক্ষ নার্সকে দিয়ে ডেলিভারি করানোর কারনে নবজাতক অসুস্থ্য হয়ে পড়লে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীর স্বজনকে বলেন, নবজাতককে বাঁচাতে হলে অতি দ্রুত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। কিন্তু ততক্ষণে ওই হাসপাতালেই সদ্য ভূমিষ্ট হওয়া নবজাতকটি পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে গেছে।

নিহত নবজাতকের বাবা স্বপন মিয়া ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন-তার কাছ থেকে ১৬ হাজার টাকা চুক্তিতে ১০ হাজার টাকা অগ্রিম নিয়ে সিজারিয়ান অপারেশনের কথা বলে এক অদক্ষ নার্সকে দিয়ে নরমাল ডেলিভারি করিয়ে আমার বাচ্চাকে ওরা মেরে ফেলেছে। আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই বলে কাঁদতে লাগলেন স্বপন মিয়া।

দর্শক ময়মনসিংহ সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের ঘুষ বানিজ্য নিয়ে আগামী কাল থাকছে একটি প্রতিবেদন। ততক্ষণ আমাদের সাথেই থাকুন।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ