মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন

বছরের প্রথম দিনে নতুন বই পেল শিক্ষার্থীরা

নীরব চৌধুরী বিটন, খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ১ জানুয়ারী, ২০২২

খাগড়াছড়ি শহরের দক্ষিন খবংপড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অক্ষরা চাকমা ( ৬ ) দিত্বীয় শ্রেণীতে পড়ুয়া খুদে শিক্ষার্থী তার বাবা বিটন চাকমার হাত ধরে বছরের প্রথম দিনে নতুন বই নিতে এসেছে । বাবা বিটন চাকমা বলেন, করোনার কারণে স্কুল র্দীঘ দিন স্কুল ছিল ।নতুন বছরে নতুন বই পেল । প্রতিদিন ক্লাস চললে পড়া শুনার ক্ষতি হবে না । বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও পরিচালক কমিটিকে অনুরোধ করছি স্বাস্থ্যবিধী মেনে যেন ক্লাস পরিচালনা করা হয় ।

দক্ষিন খবংপড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান, করোনার ২০২০ সালের ১৭মার্চ থেকে ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ সালের দীর্ঘ আটার মাস স্কুল বন্ধ থাকার পর স্কুল খোলা হয় । খাগড়াছড়ি সদরের দক্ষিণ খবংপড়িয়া, উপালিপাড়া ও ভোলানাথ পাড়াসহ সত্তর জন বই পেয়েছে ।

খুদে শিক্ষার্থী অকক্ষরা চাকমা, সুবিনিতা চাকমা ও মিত্র চাকমা জানায়, নতুন বছরে নতুন বই পেয়ে আমরা খুশি ।ভালো লাগছে । প্রতিদিন ক্লাস হলে পরীক্ষায় আমরা ভালো ফল করতে পারব ।

দক্ষিন খবংপড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি ধীমান খীসা বলেন, র্দীঘ দিন করোনা সংকঠের কারণে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে যতেষ্ট পরিমাণ পড়া-শুনার ব্যাঘাত ঘটে । নতুন বছরের তঁাদের মধ্যে পড়া-শুনার উৎসাহ এবং উদ্দীপনা সৃষ্টি উদ্দ্যেশে আমরা অআনুষ্ঠিক ভাবে এবং সীমিত পরিসরে বই বিতরণ করছি । র্দীঘ দিন ধরে তাদের এই বইপ্রাপ্তী তাদের মনে যতেষ্ট উৎসাহ উদ্দীপনা এবং পড়ার প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি করবে । আমি তাদের সর্বাঙ্গীন সফলতা কামনা করছি ।

দক্ষিন খবংপড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিজয়া খীসা বলেন, র্দীঘ দিন করোনা কারণে নতুন বছরে আনুষ্ঠানিক ভাবে বই উৎসব পালন করতে পারছি না । এই বছর নতুন উমিক্রমের কারণেও অমরা স্বাস্থ্যাবিধী মেনে নিরাপত্ব বজা্য় রেখে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তোলে দিচ্ছি । সবাই যেন নতুন বই পাই সেটা নিশ্চিত করছি । সকল শিক্ষার্থীতক মাস্ক বিতরণ করা হয় ।

সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ রবিউল ইসলাম বলেন, আমার প্রাইমারি শিক্ষার্থীদের শিশু শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রণী পর্যন্ত সকল শিক্ষার্থীদের নতুন বই দেওয়া হয়েছে ।আজকে আমাদের বিনামূলে বই বিতরণ । বই বিতরণ উপলক্ষে মানণীয় প্রধানমন্ত্রী শিক্ষার্থীদের হাতে বই তোলে দিতে পারেনি বলে উনি আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থী, অভিবাবক ও শিক্ষকবৃন্দর কাছে । আমরা বিদ্যালয়ে গিয়ে মনিটরিং করছি যে বিনামূলে বই বিতরণ করা হচ্ছে কি না । সকাল বিদ্যালয়ে অত্যন্ত চমৎকার পরিবেশে শিক্ষার্থীদের মাঝে স্বাস্থ্যবিধী মেনে করোনা কালিন সময়ে বিনামূলে পাঠ্যপুস্তক বই বিতরণ করা হয়েছে ।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ