মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন

পানছড়িতে মুসুল্লীদের প্রাণের দাবী একটি কালভার্ট

প্রতিনিধির নাম
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১

পানছড়ি প্রতিনিধি, পানছড়ি (খাগড়াছড়ি) :-

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলার দক্ষিন টিএন্ডটি টিলায় অবস্থিত বায়তুল হাকিম জামে মসজিদ। পানছড়ির প্রয়াত আলহাজ্ব আবদুল হাকিম (হাকিম আলী)’র দান করা ছয় শত জায়গার উপর নির্মিত হয় মসজিদটি। প্রয়াত আফজল মেম্বার দুই শতক ও ৩নং পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো: নাজির হোসেনও অর্ধ লক্ষাধিক টাকা এই ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দান করেছে বলে কমিটি সুত্রে জানা যায়। সাপ্তাহিক জুমা’সহ মুসুল্লীরা নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করে এই মসজিদে। জুমাবারে দুইশতাধিক পার হলেও নিয়মিত অর্ধশতাধিক মুসুল্লী মসজিদে এসে নামাজ আদায় করে। এলাকার মানুষের মুষ্ঠির চাউলে নির্মিত মসজিদটি দেখতে দৃষ্টিনন্দন। কিন্তু পারাপারের একমাত্র মাধ্যম নিজেদের তৈরী নড়বড়ে বাঁশের সঁাকো। বর্ষা মৌসুমে সঁাকোর বাঁশগুলো থাকে পিচ্ছিল তাই কোমলমতি শিশু ও বয়োবৃদ্ধরা নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারেনা। অভিভাবকরা তাদের কোমলমতি শিশুদের ধমর্ীয় শিক্ষায় মক্তব্য পাঠাতে ভয়ে অনীহা প্রকাশ করে। তাই দ্বীনি শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এলাকার কোমলমতি শিশুরা। তবে নিজেদের স্বেচ্ছাশ্রমে তৈরী সঁাকোটি বছর বছর সংস্কার করতে হয় বিধায় মুসুল্লীদের প্রাণের দাবী একটি স্থায়ী কালভার্ট। মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাবেক সভাপতি মো: আলমগীর হোসেন ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো: ইউছুফ আলী জানান, মসজিদের আশ-পাশ এলাকায় প্রায় ৪০টি পরিবারের বসবাস। তাছাড়া এই কালভার্টের উপর দিয়েই অক্ষয় পাড়া, নাপিতা পাড়া, সুপারী বাগানের লোকজনের চলাচল। মুসুল্লী ও সর্বসাধারণের চলাচলের সুবিধার্থে জরুরী ভিত্তিতে স্থায়ী কালভার্ট নির্মানে প্রশাসনের সহায়তা চায় সবাই। বয়োবৃদ্ধ আলী আজম, নুরুল ইসলাম জানায়, তারা পারাপারের সময় খুব ভীত থাকে। জেলা প্রশাসকের সু-দৃষ্টি চায় তারা। উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: আবদুল মোমিন জানান, এ ব্যাপারে আমার পক্ষ থেকে চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। পানছড়ি উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী অরুণ কুমার দাস জানান, মসজিদ কমিটির সভাপতি/সম্পাদক আমার সাথে যোগাযোগ করলে পরামর্শ দিব। পরামর্শ মোতাবেক কাজ করলে আশা করি সহসাই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। তবে জেলা প্রশাসকের নজরে এলে খুব দ্রুত সমস্যার সমাধান হবে বলে জানালেন উপস্থিত মুসুল্লী ও এলাকাবাসীরা।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ