শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন

দীর্ঘ ২২ দিন নিষেধাজ্ঞার পরে মাছ ধরতে প্রস্তুত জেলেরা

মো. জামাল হোসেন খান, বরগুনা জেলা প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২১

রাত ১২টায় শেষ হচ্ছে সাগর ও নদ-নদীতে ইলিশ মাছ ধরার ২২ দিনের সরকারি নিষেধাজ্ঞা। বরগুনার বেতাগীতে সোমবার গভীর রাত থেকেই জেলেরা নৌকা, ট্রলার নিয়ে ছুটবেন এ উপকূলের বিষখালী নদীতে।

২২ দিন অলস সময় কাটানোর পর এখানকার জেলেপাড়াগুলোতে আবারও প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে আসছে। নিষেধাজ্ঞার শেষ মুহূর্তে এসে আবার কাজে ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছেন জেলেরা। অনেকে মধ্যরাতেই নদীতে ছুটবেন। দীর্ঘদিন নদীতে মাছ আহরণ বন্ধ থাকায় বেশি মাছ পাবেন বলে জেলেরা আশাবাদী।
উপজেলার জেলেপল্লি ঘুরে দেখা গেছে, মাছ ধরতে যাওয়ার জন্য জেলেরা প্রয়োজনীয় বাজার-সদাই করেছেন। এখন জাল, খাবার পানি ও অন্যান্য সরঞ্জাম নিয়ে তাঁরা নৌকা, ট্রলার প্রস্তুত করছেন।
জেলে আবুল কালাম বলেন, ‘সরকারের আইনের প্রতি সম্মান রেখে ইলিশ শিকারে যাইনি। এই বিরতিতে আমরা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। ধারদেনা করে কোনোরকমে সংসার চলছে। তবে এখন থেকে আবার মাছ ধরতে পারব ভেবে খুব ভালো লাগছে।’
এদিকে সদর ইউনিয়নের কেওড়াবুনিয়া এলাকার জেলে সোহরাব হোসেন বলেন, নিষেধাজ্ঞার সময় সরকারের দেওয়া ২০ কেজি চাল পাওয়া গেছে। কিন্তু শুধু চাল দিয়ে তো আর ভাত খাওয়া যায় না। ধারদেনা করে দিন কেটেছে। সাগরে গিয়ে মাছ ধরা পরলেই দেনা শোধ করা যাবে।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম উপলক্ষে ৩ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত বঙ্গোপসাগর ও নদ-নদীতে ইলিশ মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল সরকার। নিষেধাজ্ঞাকালে জেলার ৩ হাজার ১০০ জন নিবন্ধিত জেলেদের ৬২ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়।
উপজেলা মৎস্যজীবী সমিতির সভাপতি আব্দুর রব সিকদার বলেন, মধ্যরাতে নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে। এতে সবাই স্বস্তি পেয়েছেন। তবে জেলেরা নদীতে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিলেও অধিকাংশ নৌকা, ট্রলার মাছ শিকারের জন্য নদীতে যেতে পারবে না। যাঁরা সাগরযাত্রার অপেক্ষা করছেন, তাঁরাও ধারদেনা করে প্রস্তুতি নিয়েছেন।
বেতাগী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো: কামাল হোসেন বলেন, নদীতে ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা সফলভাবে পালন করা হয়েছে।নিষেধাজ্ঞার শেষ দিনেও ৩০ হাজার মিটার জাল জব্ধ করা হয়েছে।
বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সৃহৃদ সালেহীন জানান, নিষেধাজ্ঞাকালে জেলেদের সরকারিভাবে খাদ্যসহায়তা দেওয়া হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ