মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৭:২৮ পূর্বাহ্ন

দীঘিনালায় পেঁপে চাষে সফল কৃপাময় চাকমা

মো: সোহেল রানা, দীঘিনালা (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধিঃ-
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০২১

খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার ভৈরফা এলাকায় নিচু পাহাড়ে রেডলেডি জাতে পেঁপে চাষ করে সফল হয়েছেন কৃপাময় চাকমা। এখন তার বাগানে প্রতিদিন ৪/৫জন বেকার যুব কর্মসংস্থা হয়েছে। তার পেঁপে চাষের সফলতা দেখে উপজেলা অনেকে বেকার যুবকরা পেঁপে চাষ শুরু করছে।
সফল পেঁপে চাষী কৃপাময় চাকমা বলেন, আমরা দুই বন্ধু পার্টনারে পেঁপে চাষের জন্য জমি তৈরি করছিলাম কিন্তুু বন্ধু সাথে মিল না হওয়া কারনে আর সেই তৈরি করা জমিতে পেঁপের চারা রোপন করি নাই । আমি রাগ করে নিজে ইচ্ছায় অন্য জায়গায় নিয়ে ৬শত পেঁপের চারা রোপন করি এতে আমি মোটমুটি সফল এবং ভাল হয়। পরে আমি গত বছর ও এ বছর দুইটি বাগানে ১হাজার পেঁপের চারা রোপন করি ৩থেকে সাড়ে ৩মাস পর ফলন দেয়া শুরু করে। দুইটি বাগানে প্রায় আমার ২থেকে আড়াই লক্ষ টাকা খরচ হয়। এখন আমি দুইটি বাগান থেকে সপ্তাহে ৫/৬শত কেজি পেঁপে বিক্রি করছি। ঢাকা থেকে পাইকার এসে প্রতি কেজি পেঁপে ৩০/৩৫টাকা কেজি দরে কিনে নিয়ে যাচ্ছে। আশার করছি আমার দুইটি বাগানে প্রায় ৭/৮লক্ষ টাকা পেঁপে বিক্রি করতে পারব। পেঁপে চাষ সম্পর্কে সরকারি ভাবে প্রশিক্ষন ও ঋণ পেলে বেকার যুবকরা পেঁপে চাষ করতে আগ্রহ বাড়বে। তিনি আরো বলেন, আমি এক সময় বেকার ছিলাম আজ আমার বাগানে ৪/৫জন বেকার যুব কাজ করছে। এতে তাদের কর্মসংস্থা হয়েছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: নুরে আলম ছিদ্দিকী বলেন, পেঁপে চাষিরা কৃষি অফিসে আসলে পেঁপে চাষের আধুনিক পদ্ধতিতে চাষের জন্য পরামর্শ দেয়া হয়। যাতে করে তারা বেশি লাভবান হতে পারে সেক্ষেত্রে সঠিক গুনগত মানের বীজ থেকে নিজেরাই চারা উৎপাদন করতে হবে এবং দেড় মাস বয়সের চারা জমিতে রোপন করতে হবে। প্রচুর পরিমান জৈব সার প্রয়োগ করতে হবে। জৈব সারের গাছের কোন ক্ষতি হয় না।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ