শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২৫ পূর্বাহ্ন

টেকনাফে আপন শাশুড়ী কে হত্যার দায়ে ৪০ বছর কারাদণ্ড হয়েছে জামাতা

জিয়াউল হক জিয়া, প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২১

টেকনাফে আপন শ্বাশুড়িকে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা এবং দায়ের কোপে শ্যালিকার হাত বিচ্ছিন্ন করায় ৮ বছর পর জামাতা শামসুল আলম কে ৪০ বছরের কারাদন্ড দিয়ে,ছে কক্সবাজারের জেলা জজ আদালত।

বুধবার দুপুরে শামসুল আলমের উপস্থিতিতেই শ্বাশুড়িকে হত্যার দায়ে ৩০ বছর এবং শ্যালিকার হাত বিচ্ছিন্ন করার অপরাধে ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দেন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাঈল ।
২০১৩ সালের ১১ ডিসেম্বর দিন দুপুরে সীমানা বিরোধের জেরে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের খোন্দকার পাড়ায় ওই ঘটনা ঘটে। সাজাপ্রাপ্ত শামসুল একই গ্রামের মৃত জহির আহম্মদ মিস্ত্রীর ছেলে।
নিহতের স্বামী ও মামলার বাদী আবদুল গফুর বলেন, শামসুল আলম আমার মেয়ের স্বামী ও আমার প্রতিবেশী। তাদের সাথে আমাদের সীমানা বিরোধ ছিল। সেই বিরোধের জেরেই প্রকাশ্যে দিবালোকে আমার স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা এবং আমার ছোট মেয়ের হাত বিচ্ছিন্ন করে শামসুল। এনিয়ে আমি মামলা করি। বুধবার তার রায় হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারী কৌশুলী ( পিপি) ফরিদুল আলম বলেন, হত্যা ও হত্যা চেষ্টার আইনের ৩ টি ধারায় শামসুল আলম পৃথকভাবে ৪০ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। হাত বিচ্ছিন্ন করার দায়ে ৩২৬/৩০৭ ধারায় ১০ বছর এবং হত্যার দায়ে ৩০২ ধারায় ৩ বছরের কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। তাকে মোট ৪০ বছরই কারাভোগ করতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

এ বিভাগের আরো সংবাদ